মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

মাটিরাঙ্গা উপজেলার খেদাছড়া শতবর্ষী বটগাছ ও আলুটিলা গুহা

মাটিরাঙ্গা উপজেলায় আলুটিলার সবচেয়ে আকষীয় স্থান হচ্ছে পাহাড়ের পাদদেশে রহস্যময় এক গুহা। প্রকৃতির অপরূপ সৃষ্টি বিশাল ওই গুহাটি পাহাড়কে একপাশ থেকে অন্য পাশ পযন্ত ভেদ করেছে। ঘুটঘুটে অন্ধকার এই গুহার ওপর থেকে ঝিরঝির করে পড়ে পানি। গুহার ভিতর ঢুকতে হলে মশাল জ্বালিয়ে যেতে হয়। পযটন কেন্দেই ৫ থেকে ১০ টাকা দিয়ে পাওয়া যায় মশায়। গা ছমছম করা অনুভূতি নিয়ে পাহাড়ি সুরঙ্গ পথ বেয়ে নামতে নামতে মনে হবে আপনি যেন পাতালে চলে যাচ্ছেন। পাহাড়ের পাদদেশ থেকে গুহার মুখ পযন্ত যেতে এক সময় দশনাথীদের অনেক কষ্ট করতে হতো। তবে জেলা পরিষদ সেখানে পাকা সিড়ি নিমান করায় এখন পাহাড়ের চূড়া থেকে ২৬৬ টি সিড়ি বেয়ে চলে যাওয়া যায় নিচে। আলুটিলা সুরঙ্গের দৈঘ্য প্রায় ২৮২ ফুট।

 

মাটিরাঙ্গা থেক খেদাছড়া

মাটিরাঙ্গার খেদাছড়ার কাছাকাছি এলাকায় রয়েছে শতবর্ষী  এক বটগাছ। এই গাছ শুধু ইতিহাসের সাক্ষী নয়, এ যেন দর্শানাথীদের জন্য আশ্চর্য এক বস্তু। পাঁচ একরেরও বেশি জায়গাজুড়ে রয়েছে এ গাছ। মূল বটগাছটি থেকে নেমে আসা প্রতিটি ঝুড়িমূল কালের পরিক্রমায় এক একটি নতুন বটবৃক্ষে পরিণত হয়েছে। আশ্চর্যের বিষয়, ঝুড়ি মূল থেকে সৃষ্টি প্রতিটি গাছ মূল গাছের সঙ্গে সন্তানের মতোই জড়িয়ে আছে। স্থানীয়দের মতে, এ বটবৃক্ষের নিচে বসে যিনি শীতল বাতাস লাগাবেন তিনিও শতবর্ষী হবেন।